ঘুমের সমস্যা এড়াতে প্রয়োজনীয় ৭ টি টিপস্‌

ঘুম মানুষকে সুস্থ ও চাঙ্গা করে। ঘুম শরীর থেকে ক্লান্তি দূর করে। ঘুম মানুষকে সুস্থ ও চাঙ্গা করে এবং পরবর্তী দিনের কাজের জন্য আমাদের সস্থি দিয়ে থাকে। বিছানায় শুয়ে শুয়ে ঘুমের জন্য কতইনা চেষ্টা করাহয় কিন্তু ঘুম আসেনা।এ কষ্ট তা শুধু তারাই বুজতে পারে যাদের ঘুম আসে না। চিকিৎসকরা বলে থাকেন একজন প্রাপ্তবয়ষ্ক মানুষের দৈনিক ৬-৭ ঘণ্টা শুমের প্রয়োজন। কিন্তু এই স্বাভাবিক ঘুমটুকু অনেকই ঘুমাতে পারেন না। ঘুমের এই সমস্যা এড়াতে প্রয়োজনীয় ৭ টি টিপস্‌ আপনাদের জন্য এখানে দাও হলো-

১. অ্যালকোহল আছে এমন খাবার ত্যাগ করুন

 

অনেকাই ঘুমানর আগে অ্যালকোহল পান করে থাকে কারণ তারা মনে করেন অ্যালকোহল ঘুমের জন্য বেশ সহায়ক।কিন্তু এটা একদমই ঠিক না।অতিরিক্ত অ্যালকোহল মস্তিষ্কে ঘুমের ছন্দে ব্যাপক ক্ষতি করে থাকে।আর ফল এ অনেক সময় ঘুম আসে না। ঘুম আসলে ও বার বার ঘুম ভেঙেই যাই। তাই ভালো ঘুমের জন্য ত্যাগ করতে হবে অ্যালকোহলের মায়াটুকু। যাদের ঘুম ভালো হয়না তারা রাতে যেন অ্যালকোহল না খায়। একটু একটু দিন এ খেলে তেমন সমস্যা নাই। তাই ভালো ঘুমের জন্য ত্যাগ করুন অ্যালকোহল আছে এমন খাবার ।

২। মাদক সেবন পরিহার করুন –


যেসকল ওষুধ বা মাদক মানবদেহে শারীরিক উত্তেজনা সৃষ্টিকরে সেইসকল ওষুধ বা মাদক পরিহার করলে আপনি হতে পারেন গভীর ঘুমের অধিকারি।মাদক মানবদেহে মারাক্তক ক্ষতি করে।অনেকে ঘুমাতে যাওয়ার আগে সিগারেট কিংবা মাধক সেবন করেন। এ দুটোই ঘুমের জন্য মারাক্তক ক্ষতিকর। নিকোটিন এবং মাধক স্নায়ুর উত্তেজনা ঘটে এবং ঘুমকে তাড়িয়ে দেয়। অনেকসময় উচ্চ রক্তচাপ/হাই ব্লাড প্রেসার এর ওষুধগুলোও ঘুমের অনেক ব্যাঘাত ঘটিয়ে থাকে

৩. ক্যাফেইন পরিহার করুন –


ক্যাফেইন সাধারণত ঘুম তাড়িয়ে দিয়ে থাকে।যাঁদের ঘুম ঠিকমতো হয়না, তাঁদের দুপুরের খাবারের পর থেকে কফি না খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।অন্তত ঘুমের পাঁচ ঘণ্টা আগে শেষ চা বা কফিটুকু পান করুন।তাহলে ভালোভাবে ঘুমাতে পারবেন আশা করা যাই।

৪. মেডিটেশন করুন –


২০০৮ সালের একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, ধ্যান বা মেডিটেশন ইনসমনিয়া বা ঘুমের সমস্যার সঙ্গে লড়াই করে ভালো ঘুম উপহার দেয়। মেডিটেশন মন ও শরীকে শিথিল করে। এ ছাড়া ধ্যানের সময় গভীর শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম ঘুম আসতে বেশ সাহায্য করে থাকে। তাই একটি চমৎকার মেডিটেশন বা ধ্যান ভালো গুমের জন্য কার্যকর ভুমিকা করে থাকে

৫ পরিশ্রম বা ব্যায়াম করুন –

 

ভালোভাবে হবে হবার জন্য শারীরিক পরিশ্রম বা ব্যায়াম ঘুম আসতে কার্যকারী প্রাকৃতিক ওষুধ হিসাবে কাজ করে। বিশেষজ্ঞরা বলেন, যাঁরা শারীরিক পরিশ্রম বা ব্যায়াম করেন, তাঁদের ঘুম ভালো হয়। তাই ভালো ঘুমের জন্য নিয়মিত শারীরিক পরিশ্রম বা ব্যায়াম করুন।এটি আপনাকে খুব ভালো ঘুম উপহার দিবে।

৬. যোগব্যায়াম করা –

 

যোগব্যায়াম সারা বিশ্বেই প্রচলিত আছে। যোগব্যায়াম করা খুবিই ভালো যোগব্যায়াম করা কারন ঘুম হওয়ার জন্য একটি প্রাকৃতিক উপায়। যোগব্যায়াম শরীরকে শিথিল রাখতে সাহায্য করে এবং ভালো ঘুম হতে সাহায্য করে থাকে।

৭. অ্যারোমা থেরাপি –


২০০৬ সালের একটি গবেষণায় বলা হয়, ভেষজ তেলের ঘ্রাণ গভীর ঘুমের জন্য বেশ উপকারী। তাই যাঁরা ঘুম না হওয়ার সমস্যায় ভুগছেন, তাঁরা পার্লারে গিয়ে অ্যারোমা থেরাপি নিয়ে দেখতে পারেন উপকার পাবেন।অ্যারোমা থেরাপির মধ্যে যে প্রয়োজনীয় ভেষজ তেল, বাথ স্ক্রার, চোখের মাস্ক ইত্যাদি ব্যবহার করা হয় ফলে ভালো ঘুমের জন্য সাহায্য করে। তাই এটি থেকে আপনি অনেক ভালো উপকার পেতে পারেন

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *